অ্যালোভেরার ১০ রকমভাবে ১০ টি ব্যবহার

সংগৃহিত: আমাদের চারপাশে আমরা প্রতিনিয়তই অ্যালোভেরা বা ঘৃতকুমারী গাছ দেখে থাকি। এটি একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ প্রাকৃতিক উপাদান যা আমাদের শরীরের জন্য অতি উপকারী।

অ্যালোভেরা তে রয়েছে ভিটামিন ই, অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এন্ড অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এর উপাদান যা আমাদের ত্বককে উজ্জ্বল করে এবং ব্রণ দূর করতে সাহায্য করে।
এলোভেরা চুলের এবং ত্বকের উভয়ের জন্য অনেক ভালো । অ্যালোভেরা জুস খাওয়ার মাধ্যমে আমাদের শরীরে নানা বিধ উপকার সাধিত হয়।

১. ত্বকের উজ্জলতা বৃদ্ধি করতে:
(i) ১ চামচ অ্যালোভেরা
(ii) একটি ভিটামিন ই ক্যাপসুল তথা ইক্যাপ
এ দুটি উপাদান ভালোভাবে পেস্ট করে নিতে হবে। তারপরে আপনি এটিকে ক্রিম হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন।একমাস এটিকে ব্যবহার করার পরে আপনি নিজেই আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতার লক্ষ করতে পারবেন।
ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধোয়ার পরও আপনি এটাকে ডি মশ্চারাইজার ক্রিম হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন অথবা আপনি এটিকে নাইট ক্রিম হিসেবেও ব্যবহার করতে পারেন । এটি ব্যবহারে যে ফলাফল টি আসবে তার চোখে পড়ার মতো হবে।

২. ত্বকে ব্রণ দূর করতে:
(i) অ্যালোভেরা
(ii) চন্দন পাউডার
এই দুটি উপাদান ভালোভাবে মিশিয়ে যেখানে ব্রণ বের হয়েছে শুধু সেখানে লাগানোর মাধ্যমে দুই দিনের মধ্যে আপনার ত্বকের ব্রণটি নিঃশেষ হয়ে যাবে ।এর সাথে যদি আপনি “টি ট্রি” অয়েল মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন তবে সাথে সাথে কাজ হয়ে যাবে।

৩. শুষ্ক ত্বকের জন্য:
(i) অ্যালোভেরা
(ii) ১ ইঞ্চি পরিমাণ কলা
(ওওও) হাফ থেকে এক চামচ বাদামের তেল
উপাদান গুলো ভালভাবে মিশিয়ে ত্বকে লাগালে আপনার ত্বকের শুষ্কতা চলে যাবে।কারণ এই পেজটি ইউজ করলে আপনার ত্বক হাইড্রেশন এবং ময়েশ্চারাইজেশন পায় যার কারনে আপনার ত্বক থেকে শুষ্কতা চলে যায় । এবং আপনার ত্বক হয়ে ওঠে মসৃণ।

৪. মেকআপ রিমুভার হিসেবে ব্যবহার:
(i) অ্যালোভেরা
(ii) নারিকেল তেল
এই দুটি উপাদান মিশিয়ে মেকাপের ওপর লাগিয়ে ভালোভাবে ত্বকে এপ্লাই করলে মেকআপ অনেক সুন্দরভাবে উঠে আসে এতে ত্বকের কোনো ক্ষতি হয় না।দোকান থেকে যেসকল মেকআপ রিমুভার অথবা ক্লিনজার কেনা হয় এটি ব্যবহারের মাধ্যমে তার থেকেও ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।

৫. আইব্র এবং চোখের পাপড়ির আকার বৃদ্ধি করতে:
(i) সামান্য পরিমাণ অ্যালোভেরা
(ii) এক থেকে দুই ফোঁটা ক্যাস্টর অয়েল
এই দুটি উপাদান একসাথে মিশ্রিত করে যদি আইব্র এবং চোখের পাপড়িতে লাগানো যায় তবে এক থেকে দু মাসের মধ্যে আইব্র এবং চোখের পাপড়ির আকার অনেক সুন্দর ভাবে বৃদ্ধি পায়।

৬. স্ক্রাব তৈরীতে:
(i) এক চামচ এলোভেরা
(ii) আধা চামচ চাউলের আটা
এ দুটি উপাদান একসাথে স্ক্রাব হিসেবে তোকে লাগানোর পরে নিজের ফলাফল দেখুন। এটি আপনার ত্বকের দেড স্কিন সরিয়ে ফেলে। অ্যালোভেরা আপনার ত্বক মসৃণ করে এবং চাউলের আটা আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে।চাউলের আটা যদি ঘরে না থাকে তবে ব্লেন্ডারে করে এটিকে গুঁড়া করে নিতে পারেন । এই মিশ্রণটি দামি দামি স্ক্রাপ কেও হার মানাবে ।

৭. কন্ডিশনার এবং সিরাম হিসেবে:
(i) শুধু এলোভেরা
গোসলে যাওয়ার পুর্বে আপনার মাথার স্ক্যাল্পে এবং চুলগুলোতে ভালোভাবে অ্যালোভেরা লাগিয়ে নিন ১০ মিনিট ম্যাসাজ করুন ভালোভাবে তারপরে শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন এতে আপনার চুলের গোড়া মজবুত হবে আপনার চুলের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে। গোসলশেষে সিরাম হিসেবেও আপনি অ্যালোভেরা ব্যবহার করতে পারেন। এতে আপনার চুল অনেক বেশি সিল্কি হয়ে যাবে।

৮. রোদে পোড়া দাগ দূর করে:
(i) এক চামচ অ্যালোভেরা
(ii) কয়েক ফোঁটা টমেটোর রস
(iii) কয়েক ফোঁটা লেবুর রস
(iv) হলুদ
দুটি উপাদান ভালোভাবে মিশিয়ে নিন ।তারপরে আপনার পুরো শরীরে অথবা যে সকল জায়গায় রোদে পোড়া কালো দাগ রয়েছে সে সকল জায়গায় লাগিয়ে ফেলুন। ১৫-২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এতে আপনার ত্বকের কালো দাগ দূর হয়ে যায় এবং উজ্জ্বলতা ফিরে আসে। এটি যদি এক সপ্তাহ নিয়মিত ব্যবহার করা যায় তবে আপনার ত্বকের সকল কালো দাগ চিরতরে চলে যাবে এবং আপনার ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল।

৯. লোশন হিসেবে ব্যবহার:
(i) এক চামচ অ্যালোভেরা
(ii) নারিকেল তেল অথবা অলিভ অয়েল
এ দুটি উপাদানকে সুন্দর ভাবে মিশিয়ে নিন। মিশানোর পর এর রং হয়ে যাবে সাদা।এরপর এটি দৈনিক ব্যবহারের মাধ্যমে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল এবং মসৃণ এর সাথে সাথে আপনার ত্বকের গঠনবিন্যাসও হয়ে উঠবে চোখে পড়ার মতো।

১০. মেকআপ প্রাইমার এবং সিরাম হিসেবে:
(i) শুধু এলোভেরা
মেকআপ করার পূর্বে অ্যালোভেরা আপনার ত্বকে ভালোভাবে এপ্লাই করে নিন তারপর আপনার যাবতীয় মেকআপ করে ফেলুন । এর ফলে আপনার মেকআপ ৫ থেকে ৬ ঘন্টা পর্যন্ত আপনার ত্বক থেকে বিন্দুমাত্র উঠবে না ।

অ্যালোভেরা এমন একটি উপাদান যা সেনসিটিভ স্কিনের জন্য অনেক বেশি উপকারী। ৯৯% মানুষের মুখে অ্যালোভেরা অনেক সুন্দর ফলাফল নিয়ে আসে।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন