জি-৭ নেতাদের উপহাস করে চীনা কার্টুন অনলাইনে ভাইরাল

স্বতঃকণ্ঠ আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ চীনের এক কার্টুনিস্ট চীনকে দমনকারী গ্রুপ অফ সেভেন (জি৭) সদস্যদের নিয়ে বিদ্রুপ করে বিখ্যাত ধর্মীয় ম্যুরাল “দ্য লাস্ট সাপার” অবলম্বনে একটি চিত্র অংকন করেছে।

রবিবার ১৩ জুন চীনের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সিনা ওয়েইবো’তে ভাইরাল হয়, যখন যুক্তরাজ্যের কর্নওয়ালে জি-৭ শীর্ষ সম্মেলন চলছিল।

শনিবার ১৪ জুন সিনা ওয়েইবোতে “বানটোংলাওয়াটাং” দ্বারা প্রকাশিত “দ্য লাস্ট জি৭” শিরোনামের এই চিত্রটি বিখ্যাত ধর্মীয় ম্যুরাল দ্য লাস্ট সাপার অবলম্বনে আঁকা হয়।

এই জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনকে ব্যাপকভাবে চীনের বিরুদ্ধে মিত্রদের একত্রিত করার মার্কিন প্রচেষ্টা হিসাবে দেখান হয়।

“দ্য লাস্ট সাপার”-এ যীশুখ্রীষ্টের ক্রুশবিদ্ধ হওয়ার আগে যীশু তার সাথীদের সাথে যে চূড়ান্ত খাবার ভাগ করে নিয়েছিলেন, তার অনুরূপ একটি চিত্রকর্মে যথাক্রমে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ইতালি, কানাডা, জাপান, জার্মানি, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া এবং ভারতের প্রতিনিধিত্ব কারী নয়টি প্রাণীর একটি উজ্জ্বল ছবি আঁকেন।

চিত্রটিতে একটি টেবিলের চারপাশে একটি চীনা মানচিত্র আকৃতির কেক নিয়ে বসে থাকতে দেখা যায়। চিত্রকলার উপরে একটি উদ্ধৃতিতে লেখা ছিল, “থ্রু দিস উই ক্যান রুল দ্যা ওয়ার্ল্ড অর্থাৎ -এর মাধ্যমে আমরা এখনও বিশ্বশাসন করতে পারি”।

চিত্রটিতে জি-৭ এর প্রতিনিধিত্ব কারীদের বিভিন্ন প্রাণীর মুখের অভিব্যক্তি এবং অঙ্গভঙ্গিতে আঁকানো হয়েছে। সেখানে বোঝান হয়েছে যে, জি-৭ এর প্রতিটি পক্ষ আসলে চীনকে দমন করার এবং পশ্চিমা আধিপত্য বজায় রাখার ষড়যন্ত্র কষছে।

চিত্রটিতে বিভিন্ন দেশের ভূমিকা যেভাবে চিত্রায়িত করা হয়-

আমেরিকাঃ একটি বোলার টুপি পরে, তার উপর একটি আমেরিকান পতাকা সহ, একটি টাক ঈগল শেষ রাতের খাবারে যীশুর মতো মাঝখানে বসে, স্পষ্টতই খাবারের আহ্বায়ক। টাক ঈগলের সামনে একটি ছোট ব্যাংকনোট মুদ্রণ মেশিন এবং টেবিলে একটি বিল রয়েছে। মেশিনটি টয়লেট পেপার ডলারে মুদ্রণ করছে, এবং বিলের সংখ্যা আরও বড় হয়ে যায়- ২ ট্রিলিয়ন থেকে ৮ ট্রিলিয়ন।

এছাড়াও তার পায়ের নিচে একটি লোহার হুক রয়েছে এবং টেবিলে তার হাতের কাছে রক্ত সহ দুই টুকরো তুলা রয়েছে, যা ইঙ্গিত দেয় “মার্কিনদের মূলধন গড়ে উঠেছে জাতিগত নিপীড়নের মাধ্যমে”।

“সার্প টাং পাম্পকিন” নামে একজন ভ্লগার তার সর্বশেষ ভিডিওতে এ দৃষ্টান্ত বিশ্লেষণ করে বলেছেন, যা শনিবার বিকেলে আপলোড করার এক দিনের মধ্যে ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম বিলিবিলিতে ৭ লাখেরও বেশি ভিউ অর্জন করেছে। টাক ঈগলের ছবি দেখায় যে আজকের আগ্রাসী কিন্তু দুর্বল যুক্তরাষ্ট্র তার ক্রমবর্ধমান ঋণ সংকট এবং জাতিগত দ্বন্দ্বে আটকা পড়েছে, কিন্তু এখনও চীনের দিকে আঙুল তুলেছে।

ইতালীঃ টাক ঈগলের বাম দিকে বসে আছে একটি ধূসর নেকড়ে, তার উপর একটি ইতালীয় পতাকা সহ টুপি পরে। নেকড়েটি শেষ রাতের খাবারে অ্যান্ড্রুহিসাবে হাত নাড়ে, যেন চীনের বিরুদ্ধে যৌথভাবে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার মার্কিন পরামর্শকে “না” বলে। চিত্রে দেখা যাচ্ছে ধূসর নেকড়ে চীনের বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ (বিআরআই)তে যোগ দেওয়া প্রথম ইউরোপীয় দেশ ইতালি চীনকে দমন করতে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সহযোগিতা করতে অনিচ্ছুক।

জাপানঃ নেকড়েটির পাশে একটি আকিতা কুকুর রয়েছে যা জাপানের প্রতিনিধিত্ব করে। আসন ছাড়া অন্যদের “পানীয়” পরিবেশন করতে ব্যস্ত, অন্যান্য প্রাণীর গ্লাসে সবুজ তেজস্ক্রিয় জল ঢালছে।

ওয়েইবোতে কিছু ব্যবহারকারী বলেছেন, ধ্বংস প্রাপ্ত ফুকুশিমা পারমাণবিক কেন্দ্র থেকে জাপান প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে যে দূষিত পানি ছাড়ার পরিকল্পনা করেছে, তা হচ্ছে সবুজ পানি।

অস্ট্রেলিয়াঃ কুকুরের পাশে বসে আছে একটি ক্যাঙ্গারু, যা তার বাম হাতটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মুদ্রণ করছে এমন ব্যাংকনোটগুলিতে প্রসারিত করছে, এবং তার ডান হাতে একটি ব্যাগ ধরে। ক্যাঙ্গারু দ্বিমুখী অস্ট্রেলিয়ার প্রতীক, যারা চীনকে নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্রিয়ভাবে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সহযোগিতা করে, কিন্তু তার বৃহত্তম বাণিজ্যিক অংশীদার চীন থেকে অর্থ উপার্জন করতে আগ্রহী বলে মন্তব্য করেন ভ্লগার “সার্প টাং পাম্পকিন”।

জার্মানিঃ বাম কোণে একটি কালো বাজ পাখি দাঁড়িয়ে আছে, যা স্পষ্টতই জার্মানির প্রতিনিধিত্ব করে। কারণ ২০১৮ সালে জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনের একটি ছবিতে জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল প্রায় এই ভঙ্গি দাঁড়িয়ে ছিলেন।

ফ্রান্সঃ ডান দিকে নীরবে বসে থাকা মোরগের (ফ্রান্সের প্রতিনিধিত্বকারী) অনুরূপ জার্মানি তার নিজস্ব ইউরোপীয় বিষয়ে বেশি আগ্রহী বলে মনে হচ্ছে এবং যুক্তরাষ্ট্রের প্রচারণায় কম উৎসাহ দেখাচ্ছে।

যুক্তরাজ্যঃ টেবিলের ডান দিকে যথাক্রমে একটি সিংহ বসে যা যুক্তরাজ্য এর প্রতিনিধিত্ব করে। যারা মার্কিন ঘনিষ্ঠ ফাইভ আইজ এর মিত্র।

কানাডাঃ সিংহ বা যুক্তরাজ্য এর ডান পাশে একটি নুট্রিয়া যা কানাডার প্রতিনিধিত্ব করে। একটি লাল কোট পরে, তার উপর মারিজুয়ানার ছবি, হাতে একটি পুতুল ধরে। অনেক নেটিজেন বিশ্বাস করেন যে, পুতুলটি হুয়াওয়ে’র প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা মেং ওয়ানঝাউকে প্রতিনিধিত্ব করে, যাকে এখনও কানাডায় অযৌক্তিকভাবে আটক করে রাখা হয়েছে।

ভারতঃ টেবিলের ডান কোণে একটি হাতি যা ভারতের প্রতিনিধিত্ব কারী হিসেবে দেখান হয়েছে। সেখানে ভারতেকে টেবিলের নিচে চেয়ার ছাড়া মটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে। তার সামনে একটি লোটা এবং পেছনে অক্সিজেন সিলিন্ডার।

এই চিত্রকলাটি রবিবার ১৩ জুন ওয়েইবোতে আলোড়ন সৃষ্টি করে, অসংখ্য ব্যবহারকারী চিত্রশিল্পীর প্রশংসা করে পশ্চিমাদের অশুভ উদ্দেশ্য কে স্পষ্টভাবে এবং সোজাভাবে প্রকাশ করার জন্য।

সূত্রঃ গ্লোবাল টাইমস

আরও পড়ুনঃ চীন সম্পর্কে কঠোর অবস্থান নিয়েছে ন্যাটো

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন