তিয়ানওয়েন-১: চীনের প্রথম মঙ্গল অভিযান

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ চীনের মঙ্গল অভিযান লাল গ্রহ অন্বেষণকারী অভিযানে একটি রোমাঞ্চকর সংযোজন।

তিয়ানওয়েন-১ চাইনা ন্যাশনাল স্পেস অ্যাডমিনেস্ট্রেশন(সিএনএসএ) এর প্রথম স্বাধীন আন্তঃগ্রহ মিশন। ২৩ জুলাই, ২০২০ তারিখে কোভিড-১৯ মহামারীর মাঝে একটি লং মার্চ ৫ রকেটে পৃথিবী থেকে উৎক্ষেপণ করা হয় তিয়ানওয়েন-১।

পৃথিবী থেকে ২৯২ মিলিয়ন মাইল (৪৭০ মিলিয়ন কিলোমিটার) ভ্রমণের পর ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তিয়ানওয়েন-১ সফলভাবে লাল গ্রহের চারপাশে কক্ষপথে প্রবেশ করে।

নেচার অ্যাস্ট্রোনমিতে তিয়ানওয়েন-১ দল কর্তৃক প্রকাশিত একটি গবেষণাপত্র অনুসারে, মঙ্গলের কক্ষপথে বৈজ্ঞানিক তথ্যানুসন্ধানের একটি দীর্ঘ তালিকা রয়েছে। এটি মেরু কক্ষপথে প্রদক্ষিণ করবে, যা মঙ্গলের মর্ফোলজি এবং ভূতত্ত্ব মানচিত্র করা, মঙ্গল-কক্ষপথে সাবসারফেস এক্সপ্লোরেশন রাডার যন্ত্র ব্যবহার করে মাটির বৈশিষ্ট্য এবং পানি-বরফ বন্টন পরিমাপ করা হবে। এটি আয়নোস্ফিয়ার এবং গ্রহের চারপাশের তড়িৎচুম্বকীয় এবং মহাকর্ষীয় ক্ষেত্র সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করবে। পরিশেষে, এটি মঙ্গল পৃষ্ঠের রোভার ও পৃথিবী থেকে তথ্য পাঠানো এবং গ্রহণ করার জন্য একটি যোগাযোগ রিলে হিসেবে কাজ করবে।

আগমনের প্রায় তিন মাস পর, ২০২১ সালের মে বা জুন মাসে একটি ল্যান্ডার কক্ষপথ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে রোভারসহ মঙ্গলের ইউটোপিয়া প্লানিটিতে অবতরণ করবে।

গবেষকরা বলছেন এটি একটি অপেক্ষাকৃত নিরাপদ কিন্তু বৈজ্ঞানিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ অবতরণ স্থল।

মঙ্গলপৃষ্ঠে ল্যান্ডারটি অবতরণের পর, ল্যান্ডারটি রোভারের জন্য একটি র‍্যাম্প উন্মোচন করবে। এরপর রোভারটি রেড প্ল্যানেটে তার দুঃসাহসিক কাজ শুরু করবে।

রোভার তার নিজস্ব সাবসারফেস এক্সপ্লোরেশন রাডার সঙ্গে পৃষ্ঠের মাটির বৈশিষ্ট্য এবং পানি-বরফ বন্টন কক্ষপথের গবেষণার পরিপূরক হবে। এটি মঙ্গলপৃষ্ঠের উপাদান গঠন এবং মঙ্গলের জলবায়ু এবং পরিবেশের বৈশিষ্ট্য বিশ্লেষণ করবে।

চীনের তিয়ানওয়েন-১ এর সাথে আরও দুটি দেশ একই মাস অর্থাৎ জুলাই ২০২০ এ মঙ্গল অভিযান পরিচালনা করে। অন্য দুটি দেশ হল সংযুক্ত আরব আমিরাত ও যুক্তরাষ্ট্র। এসময় সংযুক্ত আরব আমিরাতের ইউএই স্পেস এজেন্সি তাদের হোপ স্যাটেলাইট এবং যুক্তরাষ্ট্রের নাসা তাদের পার্সিভারেন্স রোভার মঙ্গলে প্রেরণ করে।

নাসার পার্সিভারেন্স রোভার ইতিমধ্যেই মঙ্গলপৃষ্ঠে সফলভাবে অবতরণ করতে সক্ষম হয়েছে। এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতের হোপ স্যাটেলাইটও মঙ্গলের কক্ষপথে বিচরন করছে।

নাসার মার্স রেকোনিসেন্স অরবিটার, ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সির মঙ্গল এক্সপ্রেস এবং নাসার বেশ কয়েকটি মঙ্গল রোভার সহ বিভিন্ন মহাকাশ অভিযানে এই গ্রহের পৃষ্ঠে বা নীচে পানির সম্ভাব্য প্রমাণ পাওয়া গেছে। কিন্তু তিয়ানওয়েন-১ অরবিটার এবং নাম অজানা রোভার উভয়ই মঙ্গলে পানির আরো ভালো প্রমাণ অনুসন্ধানের জন্য রাডার ডিভাইস ব্যবহার করবে।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এটা গুরুত্বপূর্ণ, কারণ প্রচুর প্রমাণ মঙ্গল গ্রহকে নির্দেশ করে যে তার ইতিহাসের কোন এক সময়ে জীবনকে সমর্থন করতে সক্ষম হয়েছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে সম্ভবত তরল পানি ছিল সেখানে।

নাসার মার্স রিকনেসান্স অরবিটার ধারণামতে, ইউটোপিয়া প্লানিটিয়া ক্রেটারে তিয়ানওয়েন-১ এর অবতরণ স্থলে এখনও ভূগর্ভস্থ পানি সমন্বিত লেক সুপিরিয়র থাকতে পারে।

বিস্তৃত পরিসরে, সারা বিশ্বের গবেষকরা আশা করছেন যে একটি গ্রহ কিভাবে তরল পানি, জৈব উপাদান এবং একটি শক্তির উৎস কে শুষ্ক, ধুলোএবং নির্জন স্থানে রূপান্তরিত করতে পারে তা অনুসন্ধান করার জন্য নতুন মঙ্গল মিশন থেকে তথ্য ব্যবহার করবে।

ক্যালিফোর্নিয়াইয় অবস্থিত নাসা জেট প্রপালশন ল্যাবরেটরি এবং নাসার ইনসাইট মঙ্গল মিশনের ডেপুটি প্রিন্সিপাল ইনভেস্টিগেটর গ্রহভূপদার্থবিজ্ঞানী স্যু স্মেরেকারের মতে, “আমরা মঙ্গলের মাত্র এক শতাংশেরও কম দেখেছি।”

CNSA-Tianwen-1-Mars-pic

সেন্ট লুইসের ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রহ ভূতত্ত্ববিদ রেমন্ড আরভিডসনের মতে, ন্যাচার সাময়িকির সাথে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, যেহেতু গ্রহটি এতটাই ভূতাত্ত্বিকভাবে জটিল সেহেতু মঙ্গলের সব মিশনের বিভিন্ন অংশ পরীক্ষা করে, তারা এই গ্রহের বৈশ্বিক জ্ঞানে তথ্য যোগ করতে পারে।

অ্যারিজোনা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্ল্যানেটারি ইমেজ রিসার্চ ল্যাবরেটরির পরিচালক এবং নাসার মার্স রিকনেসান্স অরবিটারের হাইরাইজ ক্যামেরার প্রধান তদন্তকারী আলফ্রেড ম্যাকওয়েন বলেন, “এই এলাকাকে কিছু বিজ্ঞানী কাদা প্রবাহদ্বারা আবৃত হিসেবে ব্যাখ্যা করেছেন, তাই প্রাচীন গভীর ভূগর্ভস্থ পানির অস্তিত্ব থাকতে পারে, এবং এটি একটি রোভারের সাথে অধ্যয়ন করার জন্য একটি আকর্ষণীয় স্থান হতে পারে।”

যদি চীনের এই অভিযান সফল হয়, তবে তিয়ানওয়েন-১ হবে যে কোন দেশের প্রথম মিশন যা একটি মিশনে একটি অরবিটার, ল্যান্ডার এবং রোভার কে মঙ্গলে অবতরণ করবে। যা মহাকাশ কর্মসূচির জন্য নতুন দিগন্ত উন্মোচন করবে।

চীনের প্রথম প্রচেষ্টা মঙ্গল মিশন ইংহুও-১, ২০১১ সালের নভেম্বর মাসে রাশিয়ার ফোবোস-গ্রান্ট মিশনের সাথে একটি রাশিয়ান রকেটে উৎক্ষেপণ করে। কিন্তু তারা সেটি উৎক্ষেপণ করতে ব্যর্থ হয় এবং মহাকাশযানের সকল ধ্বংসাবশেষ পৃথিবীতে ফিরে আসে।

চীনের মহাকাশ কর্মসূচি চাঁদে বেশ কয়েকটি সফল অবতরণ এবং মুন রোভার প্রেরণ থেকে অনুপ্রেরণা পায় তিয়ানওয়েন-১ মঙ্গল অভিযানের। কিন্তু মঙ্গল অনেক দূরে, অনেক শক্তিশালী মাধ্যাকর্ষণ আছে এবং সেখানে অবতরণ বিশেষভাবে কঠিন জায়গা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

কিন্তু এই মিশনকে আরো উচ্চাভিলাষী প্রকল্পের দিকে একটি পদক্ষেপ হিসেবে বিবেচনা করা যেতে পারে। এই প্রোব তাদের চ্যাং চন্দ্র অনুসন্ধানের মাধ্যমে চীনের প্রকৌশল উপকৃত হয়েছে, এবং এর ফলে ভবিষ্যতে একটি চীনা মিশনে মূল্যবান তথ্য এবং অভিজ্ঞতা প্রদান করবে যা মঙ্গল গ্রহ থেকে পৃথিবীতে মাটি এবং খনিজ নমুনা ফিরিয়ে আনবে।

এটা গুরুত্বপূর্ণ কারণ একবার পৃথিবীতে ফিরে আসার পর, নমুনা গুলো রোভারের অত্যাধুনিক কিন্তু ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র যন্ত্রপাতি দ্বারা দূর থেকে সম্পন্ন করার চেয়ে অনেক গভীরভাবে বিশ্লেষণ করতে পারবে।

অন্যান্য অনেক মহাকাশের অনুসন্ধানের মত, তিয়ানওয়েন-১ এর একটি দার্শনিক দিক আছে। তদন্ত কারী দলের মতে, “তিয়ানওয়েন” মানে স্বর্গের প্রশ্ন। প্রাচীন চীনের অন্যতম সেরা কবি কু ইউয়ানের একটি বিখ্যাত কবিতার নাম থেকে নেওয়া একটি বাক্য।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন