পাবনাতে স্কুল ছাত্র মিশু হত্যা মামলায় একজনের ফাঁসি রায়

পাবনা প্রতিনিধি: পাবনায় চাঞ্চল্যকর কালেক্টরেট স্কুলের ৮ম শ্রেণির ছাত্র হাবিবুল্লাহ হাসান মিশু(১৪) হত্যা মামলায় আব্দুল হাদি(৩১)কে মৃত্যুদন্ড ও পঁচিশ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছেন আদালত।

পাবনার অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতের বিচারক শ্যাম সুন্দর রায় বিকেলে এই মামলার রায় প্রদান করেন। নিহত মিশু পাবনা শহরের শালগাড়িয়া কসাইপট্টি মহল্লার মোটরসাইকেল ব্যবসায়ী মহসিন আলম ছালামের ছেলে।

মৃত্যুদন্ড প্রাপ্ত আসামী আব্দুল হাদি সদর উপজেলার দাপুনিয়াইউনিয়নের ইসলামগাতি ও বর্তমান পাবনা শহরের রাধানগর নারায়নপুর মহল্লার গ্রামের আব্দুল করিমের ছেলে এবং পাবনা শহরের জনতা ব্যাংকের পিওন।

আদালত ও মামলার এজাহার সুত্রে জানা যায়, ২০১৬ সালে ২৩ মার্চ তারিখে পাবনা কালেক্টরেট স্কুলের ৮ম শ্রেণির ছাত্র হাবিবুল্লাহ হাসান মিশু প্রাইভেটে পড়তে যায়।

বাড়ি ফিরতে দেরী হওয়ায়তে মিশু একটি মোবাইল ফোন দিয়ে তার মাকে বলে সে তার বন্ধুদের সাথে আছে বাড়ি ফিরতে দেরি হবে। সেদিন সন্ধ্যা শেষে রাত হলেও মিশু আর বাড়ি ফিরেনি।

মিশুকে অনেক খোজাখুজির পর দেখা যায় পাবনা উপশহরের রামানন্দপুর নিঠুর লিচু বাগানে তাকে স্টীলের তার দিয়ে পেচিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা
করেছে।

২৪ মার্চ মিশুর বাবা মহসিন আলম ছালাম বাদী হয়ে পাবনা সদর থানায় একটি অজ্ঞাতনামী হত্যা মামলা দায়ের করেন। পুলিশ মিশুর ওই মোবাইল ফোনের কললিষ্ট ধরেই তদন্ত করে ৫ জনকে আসামী করে।

দীর্ঘদিন শুনানির পর আদালত হত্যার সাথে সরাসরি জড়িত ও পরিকল্পনাকারী আব্দুল হাদী প্রমানিত হওয়ায় বিচারক তাকে মৃত্যুদন্ড এবং আরো ২৫ হাজার টাকা জরিমানার আদেশ দেন।

সাক্ষ্য প্রমানে অন্যদের দোষী সাব্যস্ত না হওয়ায় তাদের বেকুসুর খালাস দেওয়া হয়। এই মামলায় সরকারী পক্ষের আইনজীবি ছিলেন এপিপি সালমা আক্তার শিলু ও
আসামী পক্ষের আইনজীবি ছিলেন এডভোকেট সনৎ কুমার, তৌফিক ইমাম খান।

আরও পড়ুনঃ পাবনার সাঁথিয়ায় ১ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেপ্তার

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন