পাবনার দাপুনিয়াতে যৌতুকের জন্য হত্যা হল কলেজ ছাত্রী মুন্নি

পাবনা প্রতিনিধি : যৌতুকের কারনেই নির্যাতনে হত্যার শিকার হয়েছে কলেজ ছাত্রী মুন্নি। এ অভিযোগ করেছেন নিহত মুন্নির পরিবারের সদস্যরা।
ইতোমধ্যেই এ ঘটনায় মুন্নির স্বামীসহ ৫ জনের নামে থানায় মামলা করা হয়েছে। 

জানিয়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা। থানায় দায়েরকৃত মামলা (নম্বর- ৪, তারিখ- ১/৯/২১) মারফত জানা যায়, সদরের দাপুনিয়া ইউনিয়নের মির্জাপুর দক্ষিনপাড়ার মো. রঞ্জুর মেয়ে রজনী খাতুন মুন্নি (১৯) পাবনা সিটি কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিলো।

৩ বছর পূর্বে ভালোবাসায় জড়িয়ে প্রেমের মাধ্যমে দাপুনিয়ার সাহদিয়ার গ্রামের সিরাজুল ব্যাপারীর ছেলে শাহিদুল ব্যাপারীর (২৫) এর সাথে বিয়ে হয় তার। প্রেমের বিয়ের কারনে প্রথম থেকেই মুন্নির ওপরে নাখোস ছিলো তার স্বামী শাহিদুলের পরিবারের সদস্যরা।

পরিবারের সদস্যদের প্ররোচনায় মাঝে মাঝেই শাহিদুল যৌতুকের জন্য চাপ প্রয়োগ করতো মুন্নিকে। অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ মারপিটও করতো। এসব বিষয় নিয়ে শালিসও হয়েছে একাধিকবার।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৯ আগষ্ট বিকাল সাড়ে চারটেয় সাহদিয়ারে শশুরবাড়িতে মুন্নিকে দুই লাখ টাকা যৌতুকের জন্য চাপ প্রয়োগ করে। কিন্তু বাড়ি থেকে টাকা এনে দেবার বিষয়ে অপারগতা প্রকাশ করে মুন্নি।

এ কারনে বাঁশের লাঠি দিয়ে স্বামী শাহিদুল তাকে মারধর করে। মুন্নি এর প্রতিবাদ করলে পরিবারের অন্যরা মিলে মুন্নির হাত ও পা জোর করে ধরে রেখে ওড়না দিয়ে তাকে শসরোধ করে হত্যা করে।

এঘটনা জানতে পেরে ঘটনাস্থলে ছুটে যান মুন্নির পিতা মো. রঞ্জু ঘটনাস্থলে ছুটে যান। দেখতে পান তার মেয়ের গলায় ওড়না পেঁচানোর দাগ,শরীরের নানা স্থানে ফোলা ও জখম এবং বাম চোখের ওপরে রক্ত ঝরছে।

মুন্নির পিতা এ ঘটনায় মুন্নির স্বামী সাহদিয়ারের সিরাজুল ব্যাপারীর ছেলে শাহিদুল ইসলাম, মৃত সেকেন ব্যাপারীর ছেলে সিরাজুল ব্যাপারী, সিরাজুল ব্যাপারীর স্ত্রী মোছা. নিলুফা, সিরাজুল ব্যাপারীর মেয়ে সুলতানা খাতুন ও দারোগ আলীর ছেলে আতিয়ার রহমানকে আসামি করে সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

মেয়ে হত্যার বিচার দাবি করে মো. রঞ্জু আসামিদের অনতিবিলম্বে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে বীনিতভাবে অনুরোধ জানিয়ে পুলিশ প্রশাসনের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

আরও পড়ুনঃ পাবনার চলনবিলে চলছে দেশীয় প্রজাতির ডিমওয়ালা মা মাছ ও পোনা নিধন

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন