পাবনার ভাঙ্গুড়ায় পূর্ব শত্রুতার জেরে সংর্ঘষে নিহত-২ নারীসহ আহত-১২ আটক-৫

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধিঃ

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় জমিজমা সংক্রান্ত পূর্ব শত্রুতার জেরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে তোরাপ আলী (৮০) ও ফজলু নামের দুইজন (৪০) নিহত হয়েছেন । পাশাপাশি নারীসহ ১২ জন গুরুত্বর আহত হয়েছেন।

আহতরা হলো দাসবেলাই গ্রামের আব্দুল গফুর (৫৫), মমিন (৩৫), মমেনা খাতুন (৪০), নজরল (৪০), জহির (৬০), আলাউদ্দিন (৩০), বাছিয়া খাতুন (৪০), মফিদুল (৩৫), শহিদুল (৩০), আনিছুর (৩৫) ও রহুল আমিন (৫০)। এদের মধ্যে তোরাব আলী (৮০) ও ফজলু (৪০) কে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছিল।

আহতদের উদ্ধার করে ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদেরকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছিল কিন্তু সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।

বুধবার উপজেলার খাঁন মরিচ ইউনিয়নের দাসবেলাই গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ এঘটনায় ৫ জনকে আটক করেছে। এদিকে এলাকাতে মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে নিহতের স্বজনেরা ক্ষেভে ফেটে পড়ে এবং হামলাকারি মহিতের বাড়িতে পাল্টা তারা হামলা চালায় বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, গফুর আলী গং ও বেলাল আলী গংদের মধ্যে পূর্ব থেকে জমিজমা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। তাবে সম্প্রতি গফুর আলীর পরিবারের এক গৃহবধূকে একই গ্রামের মৃত আছান আলীর ছেলে মফিদুল ইসলাম কয়েকদিন আগে উত্যক্ত করে । এতে গফুর আলী বাদি হয়ে গ্রামের প্রধান আবু জল প্রামানিক ও বেলাল হাজীর নিকট বিচার প্রর্থনা করেন। কিন্তু গ্রাম প্রধানগণ অভিযুক্ত মফিদুল ইসলামের নিকট থেকে মোটা টাকা নিয়ে উল্টো গফুর আলীর বাড়িতে বুধবার সকালে তারা বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি না করতে বলতে থাকেন। ফলে উভয় পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়।

এর আগে পূর্ব প্রস্তুতি অনুযায়ী বখাটে মফিদুল ইসলাম ধারালো ছুড়ি ও লাটিসোটা নিয়ে গফর আলীর বাড়ির পিছনে অপেক্ষা করছিল। বেলাল হাজী ও আবুজল হুংকার দিয়ে তাদের ডাকা মাত্র ২০/২৫ জন গফুর গংদের উপর ঝাপিয়ে পড়ে হামলাকারীরা তোরাপ আলী ও ফজলুল হককে কুপিয়ে জখম করে এবং একই পরিবারের গফুর আলীসহ অপর ১৩ জনকে পিটিয়ে আহত করে।

চিকিৎসাধীন গফুর আলী বলেন, স্থানীয় বেলাল হাজীর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোটা নিয়ে তাদের বাড়ির উপর এসে অতর্কিত হামলা করে পরিবারের ৯/১০ জনকে জখম করেছে।

এদিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তোরাপ আলী ও ফজলুর মৃত্যুর খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে হিহতের স্বজনেরা হামলাকারি মহিতের বাড়িতে পাল্টা হামলা করে লুটপাটের চেষ্টা করলে স্থানীয় গ্রাম পুলিশ ও থানা পুলিশ সেখানে উপস্থিত হয়ে বাধা প্রদান করেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে খানমরিচ ইউপি চেয়ারম্যন মুক্তিযোদ্ধা আসাদুর রহমান আসাদ বলেন, সংর্ঘষের পর রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পরপর দুইজন মৃত্যুর পর এলাকাতে উত্তেজনা ও পাল্টা হামলার প্রস্তুতি নেওয়ার খবরে গ্রাম পুলিশ ও থানা পুলিশ সেথানে মোতায়েন হয়ে পরিস্থিতি শান্ত রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এবিষয়ে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি মুহম্মদ আনোয়র হোসেন জানান, সহকারী পুলিশের উদ্ধর্তন কর্মকর্তা ঘটনা স্থল পরিদর্শন করেছেন। ভুক্তভোগী পরিবারের রত্বা নামের এক মহিলা ১৮ জনের নাম উল্লেক করে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের পরপরই ৫জনকে আটক করা হয়েছে। এলাকায় পুলিশী টহল জোরদার কর হয়েছে।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন