পাবনায় এক যুবককে চিকিৎসার নামে নির্যাতন করে হত্যা

পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার সদর উপজেলা মালঞ্চি ইউনিয়নের সিংগা উত্তরপাড়া সোলাইমান মৃধা (২৩) নামে মাদকাসক্ত এক যুবককে চিকিৎসার নামে নির্যাতন করে হত্যার অভিযোগ করেছেন পরিবার।

পরিবার অভিযোগ করে বলেছেন, আলোর পথ নামে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে সন্তানের সুচিকিৎসার জন্য ভর্তি করিয়ে ছিলেন তারা। ভর্তি করে দিয়ে আসার রাতেই মৃত্যুর খবর আসে সন্তানের।

এই ঘটনাটি গত ১৫ জুলাই (বৃহস্পতিবার) রাত ৯টার দিকের ঘটনা। বিষয়টি কোন মতেই আত্মহত্যা বলে মেনে নিতে পারছেনা পরিবার। তাদের অভিযোগ তাকে জোর পূর্বক শারিরিক ভাবে আঘাত করে হত্যা করেছে তারা।

এই ঘটনার বিষয়ে নিহত’র বাবা আব্দুল মান্নান মৃধা বলেন, আমার ছেলে দীর্ঘ দিন ধরে মাদক আসক্ত ছিলো। তাকে ভালো করার জন্য আমরা স্থানীয় আলোর পথ মাদকাসক্তি নিরাময়কেদ্র যোগাযোগ করে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করি।

মাসিক ১০ হাজার টাকা চিকিৎসা বাবদ খরচ চুক্তিতে সেখানে ভর্তি করা হয়। কিন্তু সন্তানকে ভর্তি করে দিয়ে আসার ঘটনার দিন রাতেই ওই নিরাময় কেন্দ্র থেকে আমার মুঠো ফোনে কল করে জানানো হয় আপনার ছেলে গলায় ফাঁস নিয়েছে।

আমরা তাকে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছি। সেখানে তার মৃত্যু হয়েছে। আমরা দ্রুত হাসপাতালে যাই কিন্তু আমার সন্তানের গলাতে ফাঁস নেয়ার কোন দাগ পাইনি। ওরা তাকে চিকিৎসার নামে নিযার্তন করে মেরে ফেলেছে।

আমার ছেলে আত্মহত্যা করতে পারেনা। এই ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষীদের আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া দাবি জানান।

এই বিষয়ে আলোর পথ মাদকাসক্তি নিরাময় কেদ্র’র ম্যনেজার মোসাদ্দেকুর রহমান জানান, ছেলেটি নিজেই নিরাময় কেন্দ্রির বাথরুমে ডুকে গলায় রশি দিয়ে ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করে।

আমরা তাকে বাথরুমে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পাই। সাথে সাথে তাকে দ্রুত উদ্ধার করে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসি। হাসপাতালে নিয়ে আসার পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

পরে আমরা তার পরিবারকে সংবাদ দিয়েছি। এই ঘটনার সাথে আমাদের কোন সম্পৃক্ততা নেই। তাকে কোন ধরনরে নির্যাতন করা হয়নি। পারিবারিক চাপের কারনে ওই ছেলেটি নিরাময় কেন্দ্রের বাথরুমে গিয়ে গলায় ফাঁস নিয়েছে।

ঘটনার সময় আমরা বেশ কয়েক জন নিরাময় কেন্দ্রের মধ্যে ছিলাম। আমাদের দ্বারা তার কোন ক্ষতি হয়নি।

এইঘটনার বিষয়ে পাবনা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম বলেন, এই ঘটনার বিষয়ে গতকাল রাতে খবর পেয়েছি।

স্থানীয় একটি মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে একজন যুবক আত্মহত্যা করছে। খবর পাওয়ার সাথে সাথে আমরা তার মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতাল কতৃপক্ষকে বলেছি।

তবে ওই পরিবারের পক্ষ থেকে এখনো কোন লিখিত অভিযোগ আমাদের কাছে করেনি। তবে এই আত্ম হত্যার ঘটনায় আমরা ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পরে সঠিক ভাবে বলতে পারবো আসলে কি হয়েছিলো।

তবে বিষটি নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। অভিযোগের বিষয়ে সত্যতা পাওয়া গেলে দোষিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুনঃ পাবনার ঈশ্বরদীতে গাঁজাসহ ১ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন