ভাঙ্গুড়ায় ৫০ শয্যা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অপারেশন থিয়েটার থাকে তালাবদ্ধ সারা বছর

ভাঙ্গুড়া প্রতিনিধিঃ পাবনার ভাঙ্গুড়ায় ৫০ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দৃষ্টিনন্দন তিন তলা ভবনের দ্বিতলে অবস্থিত অপারেশন থিয়েটারটি সারা বছরই থাকে তালা বদ্ধ।

ফলে এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বছরের পর বছর ধরে প্রসূতির মা’দের সিজারিয়ানের মতো অপারেশনও হচ্ছে না ।

এই উপজেলার বাসিন্দারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অপারেশনের সুবিধা থেকে বি ত হয়ে বেসরকারি ভাবে স্থানীয় একাধিক ক্লিনিকে অপারেশন করাতে বাধ্য হচ্ছেন ।

উপজেলার এ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অপারেশন থিয়েটারটি চালু করতে স্থানীয় বাসিন্দারা উধর্তন কর্তৃপক্ষের নিকট জোর দাবী জানিয়েছেন।

জানা যায়,সরকার স্বাস্থ্য খাতকে গুরুত্ব দিয়ে ৩১ শয্যা বিশিষ্ট ভাঙ্গুড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে আধুনিকায়ন করে ৫০ শয্যায় উন্নীত হয় ২০১৫ সালে ।

মূল ভবনের পাশে আরও একটি দৃষ্টিনন্দন তিনতলা ভবন নির্মাণ শেষ হয়েছিল একই বছরে ।

ওই বছরই তৎকালীন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোঃ নাসিম আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দৃষ্টিনন্দন ভবনটির উদ্বোধন করেছিলেন ।

মূলত তখন থেকেই এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আধুনিক তিনতলা ভবনটি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সম্প্রসারিত হাসপাতাল হিসেবে ব্যবহার করে আসছে।

এই ভবনের দ্বিতলায় রয়েছে অপারেশনের সুবিধা সম্বলিত একাধিক এয়ারকন্ডিশনার (এসি) যুক্ত একটি সজ্জিত অপারেশন খিয়েটার।

কিন্তু সেই অপারেশন থিয়েটার আজ অবধি অপারেশনের জন্য চালু হয়নি । বর্তমানে এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২জন প্রেষণেসহ ১৩ জন এমবিবিএস ডাক্তার রয়েছেন।

তবে এন্তেথিয়া প্রয়োগের ডাক্তার (অবস), অপারেশন কাজে ব্যবহৃত যন্ত্রপাতি জীবানু মুক্ত করার ব্যবস্থা না থাকার কারণে সারা বছরই তালাবদ্ধ অপারেশন থিয়েটারটিতে অপারেশন কার্য্যক্রম হচ্ছে না।

সে কারণে অপারেশন থিয়েটারে থাকা লক্ষ লক্ষ টাকার যন্ত্রপাতি নষ্ট হতে বসেছে।

অথচ অপারেশন যোগ্য রোগী আসলে তাদেরকে এখানে ভর্তি না করে বাহিরের অন্য কোথাও ভর্তি করতে পরামর্শ দিতে হচ্ছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে।

এভাবে অসহায়, দরিদ্র রোগীরা বেসরকারি ক্লিনিকে অপারেশন করেও তার ব্যায় মিটাতে প্রতিনিয়ত হিমসিম খাচ্ছে ।

তবে হাসাপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছেন, তারা বছরে একবার হলেও অপারেশন থিয়েটারের তালা খুলে ঝেড়ে মুছে একটি মাত্র অপারেশন কার্য্য সম্পন্ন করে থাকেন।

ফলে কোটি কোটি টাকা ব্যায়ে স্বাস্থ্য সেবা জনগণের দোড় গোড়ায় পৌঁছে দিতে সরকারের যে প্রচেষ্টা তা এ উপজেলার ব্যাহত হচ্ছে বলে অভিমত বিশিষ্ট জনের।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এই অবস্থা থেকে দ্রুত উত্তরণ হওয়া প্রয়োজনও বলে মত দেন তারা।

অপারেশন থিয়েটারে বন্ধ থাকার কথা স্বীকার করে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার মোসাঃ হালিমা খানম বলেন, অপারেশন এর যন্ত্রপাতি জীবানু মুক্ত করার যথাযথ ব্যবস্থা ও এন্তেথিসিয়া প্রয়োগ সম্পর্কিত ডাক্তার(অবস) না থাকার কারণে এখানে অপারেশন কার্য্য সম্পাদন করা যাচ্ছে না।

তবে সব কিছু উপেক্ষা করে বছরে একদিন হলেও এই অপারেশন থিয়েটারে একটি অপারেশন কার্য্য তিনি সম্পন্ন করেন বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

আরও পড়ুনঃ ১০৯১ পিস ইয়াবা সহ ০৩ জন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন