মোবাইল কিনে না দেওয়ায় নানীর উপর অভিমান করে নাতীর আত্মহত্যা

চাটমোহর (পাবনা) প্রতিনিধিঃ পাবনার চাটমোহরে মোবাইল ফোন কেনার বায়না ধরে না পেয়ে নানীর উপর অভিমান করে মোঃ বরকত আলী আলিফ অন্তর (১২) নামের এক শিশু গলায় ফাঁস নিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

সোমবার ২২ মার্চ সকালে উপজেলার মূলগ্রাম ইউনিয়নের চক উথুলী (গুচ্ছ) গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে।

নিহত বরকত আলী আলিফ অন্তর ওই এলাকার আবু সাইদ ও মাতা মোছাঃ আরজিনা খাতুনের ছেলে এবং জুলেখা খাতুনের নাতী।

এলাকাবাসী ও থানা সূত্রে জানা গেছে, বাবা মা ঢাকায় গার্মেন্টসে কাজ করায় শিশুকাল থেকেই নিহত অন্তর ও তার বড়ভাই নানী জুলেখা খাতুনের কাছেই থাকতো। অভাবের সংসারে নানী তার দুই নাতীকে নিয়ে দিন মজুরির কাজ করতো।

গত কয়েকদিন হলো শিশু অন্তর নানীর কাছে একটি অ্যান্ড্রয়েড (টার্চ) ফোন কিনে দেওয়ার আবদার করতে টাকা চেয়ে থাকে। কিন্তু নানী তা কিনে দিতে পারেননি।

সোমবার সকালে দুই নাতীকে নিয়ে যখন কাজে বের হবেন সে সময় আবারও অন্তর মোবাইল ফোন কিনে দিতে নানীর কাছে দাবী করে। এসময় নানী জুলেখা অন্তরকে বকাঝকা করে বড় নাতীকে সাথে নিয়ে কাজের উদ্দেশ্যে বের হয়ে যায়।

এরপরেই বাড়িতে কেউ না থাকায় সুযোগে নিজের উপর ও নানীর উপর অভিমান করে তার বসত বাড়ীর পূর্ব দুয়ারী চৌচালা টিনের ঘরের ভিতরে বাঁশের তীরের সাথে প্রিন্টের সুতি ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্নহত্যা করে। 

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে চাটমোহর থানার অফিসার ইনচার্জ তদন্ত হাসান বাশির  বলেন, খবর পেয়ে ভিকটিমের বাড়িতে আমি ও আমার এস আই ডেভিড হিমাদ্রী বর্মা ঘটনাস্হলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়।

লাশ ময়না তদন্তের জন্য পাবনা মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে আমরা জানতে পেরেছি ছেলেটি তার নানীর উপর অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে বলে জানান ওসি তদন্ত হাসান বাসির।

এ ব্যাপারে চাটমোহর থানায় একটি অপমৃত্যু দায়ের হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ পাবনার চাটমোহরে পুলিশের পক্ষ থেকে মাস্ক বিতরণ

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন