র্দীঘ দিন যাবৎ অবহেলায় গাইবান্ধার তালুকজামিরা গ্রামের সরকারি হাসপাতাল

গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ হাসপাতাল বলতে এমন প্রতিষ্ঠানকে বোঝায় যেখানে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ ও সেবাকর্মীগণ প্রয়োজনীয় উপকরণের মাধ্যমে রোগীদের স্বাস্থ্য সেবা প্রদান করেন। অনেক হাসপাতালেই রোগীর দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসার জন্য আবাসিক শয্যার ব্যবস্থাও থাকে।

কিন্তু গাইবান্ধার তালুকজামিরা গ্রামের সরকারি হাসপাতালে এসবের কিছুই মেলে না।

তবে বাংলাদেশ সরকার দেশের মানুষের কল্যানের জন্য দেশের বিভিন্ন জেলা, উপজেলা, ইউনিয়নে সরকারি হাসপাতাল তথা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স তৈরির করলেও তা তদারকি, নজরদারি ও দায়িত্বে অবহেলার কারণে রোগীরা সঠিক স্বাস্থ্য সেবা পাচ্ছে না।

গাইবান্ধার হরিনাথপুর ইউনিয়নের তালুকজামিরা গ্রামের সরকারি হাসপাতালটিও অবহেলায় জর্জরিত ভাবে পরে আছে। নেই কোনো অভিজ্ঞ চিকিৎসক কিংবা উন্নত চিকিৎসার সামগ্রী। দীর্ঘ দিন যাবত এলাকাবাসি পাচ্ছে না চিকিৎসা সেবা।

এলাকাবাসীদের সাধারন সর্দি-জ্বর, ডায়রিয়া, কলেরা সহ বিভিন্ন রোগের ঔষধ নিতে গেলেও তা অনেক সময় দিতে পারেনা হাসপাতাল কতৃপক্ষ। নিজ এলাকায় হাসপাতাল থাকার পরেও ছুটে যেতে হয় শহরে। ফলে অনেক সময়ই রোগী শহরের হাসপাতালে পৌচ্ছাবার আগেই ঘটে যায় ভয়াবহ দূর্ঘটনা।

কর্ম দিবসে হাসপাতাল পরিদর্শনে গেলে অনেক সময় তালাবদ্ধ অবস্থায় দেখা যায় হাসপাতালটি।

এলাকাবাসির অভিযোগ ফসলি মৌসুমে ধান শুকনোর কাজে ব্যবহৃত হয় হাসপাতালের ছাঁদ! নোংরা তথা ঝোপঝাড়ে ভরা চারপাশ!

হাসপাতালটি সঠিক ভাবে পরিচালিত না হওয়ায় নেশাগ্রস্থদের পদচারণায় মুখর হাসপাতালের পিছনের দিকের অংশ। বিভিন্ন মাদকদ্রব্য সেবনের স্থান হিসেবে হাসপাতালের পিছনের অংশ ব্যবহৃত হয় বলে মত এলাকাবাসীর।

এতে করে বিপাকে রয়েছেন এলাকাবাসি। তাদের প্রানের দাবি যেন উপযুক্ত ব্যবস্থা নিয়ে আবারও যেন সচল করা হয় অচল হাসপাতালটিকে।

আরও পড়ুনঃ গাইবান্ধা ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন “আশার আলোসংস্থা” কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা</h3>

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন