শিশু পুত্রকে জবাই করে হত্যা মামলায় মায়ের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

শাহজাদপুর (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে ৯ মাসের শিশু পুত্রকে জবাই করে হত্যার ঘটনায় মা মুক্তা খাতুনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড এবং ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছর বিনাশ্রম কারাদন্ড দিয়েছে সিরাজগঞ্জের জেলা আদালত।

মঙ্গলবার ১৬ মার্চ দুপুরে সিরাজগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ ফজলে খোদা নাজির এই দন্ডাদেশ প্রদান করেন।

দন্ডপ্রাপ্ত মুক্তা খাতুনের (২১) সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুর উপজেলার জোতপাড়া গ্রামের ধানকাটা শ্রমিক আব্দুল্লাহ আল মামুনের স্ত্রী এবং একই উপজেলার ছোট মহারাজপুর গ্রামের মোহাম্মাদ আলীর মেয়ে।

সরকার পক্ষের আইনজীবি (পিপি) আব্দুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ২০২০ সালের ২৮ এপ্রিল রাত ৯ টার দিকে মুক্তা খাতুনের স্বামী আব্দুল্ললাহ আল মামুন ধান কাটার জন্য নওগাঁয় যাবার কথা চূড়ান্ত করতে পাশ্ববর্তী অপর এক শ্রমিকের বাড়ীতে যায়। বাড়ীর অন্য লোকজন এসময় তারাবীর নামাজ পড়ছিল। তখন মুক্তা খাতুন নিজ ঘরে তার ৯ মাস বয়সী একমাত্র ছেলে মাহমুদুল্লাহকে মুখে টেপ লাগিয়ে দেয়। পরে ধারালো ছুড়ি দিয়ে জবাই করে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে শাহজাদপুর থানা পুলিশ পরদিন ২৯ এপ্রিল ভোরে শাহজাদপুর থানা ঘাট এলাকা থেকে মুক্তা খাতুনকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরণ করে।

এই ঘটনায় মুক্তা খাতুনের স্বামী আব্দুল্লাহ আল মামুন মুক্তা খাতুনকে আসামী করে শাহজাদপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করে।

পরবর্তীতে মুক্তা খাতুন তার শিশু পুত্রকে নিজ হাতে জবাই করে হত্যার কথা স্বীকার করে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী প্রদান করে।

এছাড়াও ১২ জন স্বাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে মুক্তা খাতুনের উপস্থিতিতে মহমান্য আদালত তাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, হত্যাকান্ডের পর মাত্র সাড়ে ১০ মাসের মধ্যে এই আলোচিত হত্যা মামলার বিচার কাজ সমাপ্ত করলেন মহমান্য আদালত।

দ্রুত মামলার রায় পেয়ে বাদী আব্দুল্লাহ আল মামুন সন্তোষ প্রকাশ করেছে।

<>আরও পড়ুনঃ পাবনার ঈশ্বরদীতে নয় মাসের শিশুকে গলাটিপে হত্যা

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন