স্মার্টফোন জগতে নতুন চমক: ‘স্যামসাং এবং অ্যাপল’ হুয়াওয়ের কাছে পরাজিত

স্মার্টফোনের বাজারে নতুন চমক সৃষ্ঠি করেছে হুয়াওয়ে। হুয়াওয়ে সকল প্রতিকূলতা কে ভেঙ্গে শুধু অ্যাপলের চেয়েই এগিয়ে নয়, স্যামসাংকে ছাড়িয়ে গেছে বিশ্বের বৃহত্তম স্মার্টফোন মার্কার হিসেবে- অন্তত এপ্রিল মাসে।

এই সংবাদের সাথে সাথে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র হুয়াওয়ের সরবরাহ শৃঙ্খলের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। চীনা প্রযুক্তি জায়ান্ট হুয়াওয়ে এই প্রথম শীর্ষ স্থানে পৌঁছেছে- সাম্প্রতিক সময়ে তাদের খারাপ সংবাদ গুলোর মধ্যে এটি অত্যান্ত আশাব্যঞ্জক ঘটনা।

সাম্প্রতিক এই পরিসংখ্যানটি এসেছে গবেষক দল কাউন্টারপয়েন্টের থেকে। যা গিজমোচিনাকে নিশ্চিত করেছে যে “হুয়াওয়ে বিশ্বের এক নম্বর স্মার্টফোন নির্মাতা যার ১৯% মার্কেট শেয়ার রয়েছে”। যেখানে স্যামসাং অবস্থান ১৭%।

গত বছর মে মাসে শুরু হওয়া মার্কিন কালো তালিকাভুক্তির পর, হুয়াওয়ে তার নতুন ফোন থেকে গুগলের ক্ষতি আন্তর্জাতিক বিক্রিকে আঘাত করেছে। কিন্তু সামগ্রিকভাবে বিক্রি রমরমা হয়েছে চীনে তার অসাধারণ পারফরম্যান্সের কারণে- হুয়াওয়ের অভ্যন্তরীণ বাজারে আধিপত্য শক্তি থেকে শক্তিতে চলে গেছে।

চীন ছিল করোনাভাইরাস লকডাউনের প্রথম প্রধান বাজার, যা স্মার্টফোন বিক্রিকে জোরে আঘাত করে। চীনেই প্রথম স্মার্টফোনের বাজার বন্ধ হয় এবং চীনেই এর প্রথম পুনরুদ্ধার শুরু হয়। যা হুয়াওয়েকে বাজার দখলে সহায়তা করেছে। স্যামসাং-এর প্রধান বাজারও কত দ্রুত পুনরুদ্ধার করতে শুরু করবে তা নির্ধারণ করবে, হুয়াওয়ে আরো এক মাস নাকি আরো তিনমাস লোভনীয় শীর্ষ স্থান ধরে রাখতে পারবে কিনা তার উপর।

প্রায় চার বছর আগে হুয়াওয়ের কনজিউমার বস ‘রিচার্ড ইউ’ কোম্পানিকে পাঁচ বছরের মধ্যে এক নম্বর স্থান দখলের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেন। এমনকি গত বছর আমেরিকা কর্তৃক কালো তালিকাভুক্তির পূর্বে কোম্পানিটি অ্যাপলকে টপকে দুই নাম্বার স্থান দখল করে নেয় এবং স্যামসাং এর প্রথম স্থানের মুকুট উপড়ে ফেলতে চায়। কিন্তু তারপর তাদের কালো তালিকাভুক্তির অন্তর্ভুক্ত করা হয়, এবং তাদের বাৎসরিক পরিকল্পনা অনুযায়ী ৫০ মিলিয়ন ফোন বিক্রয়ের টার্গেট ধাক্কা লাগে।

হুয়াওয়ের অভ্যন্তরীণ প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে যে, তারা আশা করছে যে ২০২০ সালে তাদের প্রথম বছরের পতন হবে। স্মার্টফোন শিল্পে করোনাভাইরাসের প্রভাব স্পষ্ট হতে শুরু করার আগেই এই খবর আসে। এই বছর সব শীর্ষ নির্মাতাদের জন্য একটি অনিশ্চিত বিক্রয়ের বছর হবে, এবং তাচ কোথায় শেষ হবে সেই ভবিষ্যদ্বাণী করা কঠিন। এই অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে, হুয়াওয়ের অভ্যন্তরীণ বাজারে ব্যবসা অমূল্য হবে।

এখন বিশ্বের অন্যতম প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী হুয়াওয়েকে তার অভ্যন্তরীণ প্রতিদ্বন্দ্বী শাওমিকে দেখতে হবে, যা চীনের বাইরে হুয়াওয়ের কৌশলের প্রতিলিপি করার উপর নজর রেখেছে।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন