৬০ বছরের কম বয়সীদের জন্য অ্যাস্ট্রাজেনেকার ভ্যাকসিন নিষিদ্ধ করেছে জার্মানি

স্বতঃকণ্ঠ আন্তর্জাতিক প্রতিবেদনঃ জার্মান স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ৬০ বছরের কম বয়সী ব্যক্তিদের মধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাস টীকা ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জেন্স স্প্যান এবং রাষ্ট্রীয় কর্মকর্তারা সর্বসম্মতিক্রমে একমত হয়েছেন যে ৬০ বছর বা তার বেশী বয়সী ব্যক্তিদের এই টিকা দিতে। যদি না তারা কোভিড-১৯ এর কারনে গুরুতর অসুস্থ বা উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ শ্রেণীতে না থাকেন এবং গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া থাকা সত্ত্বেও তাদের ডাক্তারের অনুমতিক্রমে এই টিকা নিতে সম্মত হয়।

জার্মানির স্বাধীন টীকা বিশেষজ্ঞ প্যানেল এবং দেশটির চিকিৎসা নিয়ন্ত্রক সংস্থা নতুন তথ্য প্রকাশ করেছে যে, দেখা যাচ্ছে যে, সাম্প্রতিক সময়ে অ্যাস্ট্রাজেনেকা টীকা প্রাপকদের মধ্যে মাথায় অস্বাভাবিক ধরনের রক্ত জমাট বাঁধার ঘটনা বেড়েছে- যা সাইনাস শিরা থ্রম্বোসিস নামে পরিচিত।

এই সংবাদ এই টিকার জন্য আরেকটি আঘাত, যা ইউরোপের টিকাদান অভিযানের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এবং দরিদ্র দেশগুলোতে এই টিকা ব্যবহার করার জন্য একটি বড় বাধা হয়ে দাঁড়াবে।

ইউরোপিয়ান মেডিসিন এজেন্সি বলেছিল যে, টিকাদানের সুবিধার চেয়ে ঝুঁকি বেশি। টিকাদানের ফলে মাথায় অস্বাভাবিক ধরনের রক্ত জমাটের মধ্যে একটি যোগসূত্র তারা অস্বীকার করতে পারেনি, এবং তারা সম্ভাব্য বিরল পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সম্পর্কে একটি সতর্কবার্তা যোগ করেছে।

রাজধানী বার্লিন এবং দেশটির সবচেয়ে জনবহুল রাষ্ট্র নর্থ রাইন-ওয়েস্টফালিয়া সহ বেশ কয়েকটি জার্মান অঞ্চল ইতোমধ্যে মঙ্গলবারের শুরুতে তরুণদের মধ্যে টিকাদান বন্ধ করে দিয়েছে। দেশটির চিকিৎসা নিয়ন্ত্রক সংস্থা বলেছে যে, ২৯ মার্চের মধ্যে বিরল রক্ত জমাটের সংখ্যা বেড়ে ৩১ হয়েছে, যা এখন পর্যন্ত জার্মানিতে পরিচালিত প্রায় ২৭ লক্ষ ডোজের মধ্যে ৩১-এ উন্নীত হয়েছে।

পল এহরলিচ ইনস্টিটিউট জানিয়েছে, এই ঘটনায় নয়জন মারা গেছে এবং দুটি ক্ষেত্র ২০ থেকে ৬৩ বছর বয়সী নারীরা জড়িত।

এই ঘোষণার আগে এক বিবৃতিতে অ্যাস্ট্রাজেনেকা বলেছেন যে, বিশ্বব্যাপী কোটি কোটি মানুষ এই টিকা পেয়েছে, এবং উল্লেখ করেছে যে ইইউ এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছে যে, এই টিকার সুবিধার চেয়ে ঝুঁকি বেশি।

কোম্পানিটি বলেছে যে, তারা জার্মান কর্তৃপক্ষের সাথে কাজ চালিয়ে যাবে তাদের যে কোন প্রশ্নের উত্তর দেয়ার জন্য এবং একই সাথে তাদের নিজস্ব রেকর্ড বিশ্লেষণ করে বুঝতে চেষ্টা করবে যে বিরল রক্ত জমাট বাঁধার ঘটনা ঘটেছে কিনা।

এমন সময়ে এই স্থগিতাদেশ এসেছে যখন জার্মানি ও অন্যান্য ইউরোপীয় দেশ এই টীকা কর্মসূচী চালু করার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ছে। সোমবার পর্যন্ত দেশটির প্রায় ১ কোটি ৩২ লক্ষ মানুষ অন্তত এক ডোজ টিকা পেয়েছে, অন্যদিকে প্রায় ৪০ লক্ষ লোক উভয় ডোজ টিকা পেয়েছে।

বিরল রক্ত জমাট নিয়ে উদ্বেগের কারণে এমাসের শুরুতে ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশে অ্যাস্ট্রাজেনেকা টীকার ব্যবহার সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়। ইউরোপিয়ান মেডিসিন এজেন্সির চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের একটি পর্যালোচনার পর, জার্মানি সহ ইউরোপীয় ইউনিয়নের অধিকাংশ দেশ ১৯ মার্চ থেকে এই টীকার ব্যবহার পুনরায় শুরু করে।

সোমবার ৫৫ বছরের কম বয়সী ব্যক্তিদের মধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনেকা টীকার ব্যবহার স্থগিত করেছে কানাডা।

কানাডার জাতীয় টিকা বিষয়ক কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ড. শেলি ডেকস বলেন, “সম্ভাব্য ঝুঁকির কারণে ৫৫ বছরের কম বয়সী প্রাপ্তবয়স্কদের অ্যাস্ট্রাজেনেকা সিওভিড-১৯ টিকা প্রদানের সুবিধা নিয়ে যথেষ্ট অনিশ্চয়তা রয়েছে।

ডেকস বলেন যে, আপডেট করা সুপারিশগুলো এসেছে ইউরোপের নতুন তথ্যের মাধ্যমে যা প্রস্তাব করছে যে, রক্ত জমাটের ঝুঁকি এখন ১ লাখ জনের মধ্যে একজনের চেয়ে বেশি, যা আগে ছিল এক মিলিয়ন জনের মধ্যে একজনের চেয়ে অনেক বেশি।

জার্মানির এই সিদ্ধান্ত সম্ভবত হাজার হাজার শিক্ষক এবং ব্যক্তিদের টিকা পাওয়াকে প্রভাবিত করবে, যারা সাম্প্রতিক দিনগুলোতে বার্লিনে টিকা দেওয়ার আমন্ত্রণ পেয়েছেন।

জার্মানির গ্রিফসওয়াল্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা এই সপ্তাহে রক্ত জমাটের সম্ভাব্য কারণ সম্পর্কে তাদের তদন্তের ফলাফল প্রকাশ করেছেন। তারা বলেন, কিছু রোগীর মধ্যে এই অবস্থা রক্তের পাতলা ওষুধ হেপারইনের মত।

এই গবেষণায় এখনো চূড়ান্ত ব্যাখ্যা প্রদান করা হয়নি যে, কেন অ্যাস্ট্রাজেনেকার ডোজ দিয়ে টিকা দেওয়ায় কিছু মানুষ বিরল রক্ত জমাট বাঁধছে। তা সত্ত্বেও, এই গবেষণার সাথে জড়িত নয় এমন বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে, এটি ডাক্তারদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করে।

ভিয়েনা মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাসকুলার রোগ এবং রক্ত জমাট গবেষণা বিশেষজ্ঞ এলিস অ্যাসিঙ্গার বলেন, বিরল রক্ত জমাটের চিকিৎসা আছে।

আরেকটি উদ্বেগের কারন হচ্ছে যে, সাম্প্রতিক আঘাত জনগণের চোখে এই টিকার সুনাম কে ক্ষুন করতে পারে।

নরওয়েজিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর জেনারেল প্র্যাকটিসের নেতা মার্তে কেভিতুম টাঙ্গেন গত সপ্তাহে নরওয়ের সম্প্রচারকারী এনআরকেকে বলেন, “যদিও সাধারণ টিকা প্রতিরোধের কোন সংবাদ নেই… মানুষ পরিষ্কারভাবে বলে যে তারা অ্যাস্ট্রাজেনেকা টীকা চায় না। অনেক অনিশ্চয়তা এবং সংশয় আছে।

প্রাথমিকভাবে, ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশ বয়স্ক ব্যক্তিদের অ্যাস্ট্রাজেনেকা টিকা দিতে দ্বিধাগ্রস্ত ছিল। ৬৫ বছর বা তার বেশী বয়সীদের টিকার কার্যকারিতা সম্পর্কে কোম্পানির তথ্যের অভাবের কথা উল্লেখ করে। পরবর্তী গবেষণায় দেখা গেছে যে বয়স্ক ব্যক্তিদের মধ্যে এটি কাজ করে, তারা বেশীরভাগ দেশকে এই বয়সের জন্য এটি অনুমোদন করতে উৎসাহিত করে।

সূত্রঃ এপি।

একই ধরনের খবর

মন্তব্য করুন